ছাতিমতলার গান।।

সুব্রত সেন মজুমদার।।

প্রকাশক: সিগনেট প্রেস।।মূল্য: ২৫০ টাকা

রবীন্দ্রনাথ তাঁর শিক্ষা সম্পর্কিত সমস্ত ধ্যানধারণা, বোধ এবং দর্শন দিয়ে তিল তিল করে গড়ে তুলেছিলেন শান্তিনিকেতন। শিক্ষা নিয়ে বরাবরই কবির এক স্বতন্ত্র ভাবনা ছিল।বাঁধাধরা শিক্ষার থেকে স্বাভাবিক প্রবণতার প্রতি তাঁর ঝোঁক ছিল বেশি। কারও ওপর কিছু চাপিয়ে দেওয়ার তিনি ঘোর বিরোধী। তাঁর মতে, সেটা শিক্ষা নয়। প্রকৃত শিক্ষা কখনোই পুঁথিপড়া বিদ্যে হতে পারে না।

রবীন্দ্রনাথ তাই মনে করতেন, শিক্ষার সঙ্গে প্রকৃতির যোগ নিবিড়।প্রকৃতির কাছে থাকলে, তার প্রভাবে মানুষ নিজেকে বিকশিত করতে পারে। প্রকৃতিই মানুষকে প্রথম পাঠ দিতে শুরু করে। স্পষ্ট সে বুঝতে পারে, তার মনের গতি তাকে কোন শিক্ষার দিকে প্রবাহিত করছে। সেই কারণেই শিক্ষার্থীকে প্রকৃতির সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে অবস্থান করতে হবে।

সেই কারণেই তো শান্তিনিকেতন। প্রাচ্য দর্শন এবং পাশ্চাত্যের গতি, এ দুটোর মিশেলে অন্যতর শিক্ষা এবং দীক্ষার সম্পূর্ণ আয়োজন।

রবীন্দ্র-যুগ থেকে শুরু করে তার পরে আরও অসাধারণ কিছু মনীষার সংস্পর্শে এসে শান্তিনিকেতনের শিক্ষা এবং চেতনার প্রসার আরও বহুধা বিস্তৃত। ঘটনার যেন শেষ নেই। আশ্রম এবং আশ্রমের রূপকারের জীবনদর্শন মিলেমিশে যে মাধুর্য আর গাম্ভীর্য, তা যেন আজও সেই একইভাবে প্রবহমান। অনুভবী মন মাত্রেই তাকে স্পর্শ করতে পারে, পারে তার অংশভাক হয়ে উঠতে।

এই ইতিহাস এবং বর্তমানের সংযুক্তির কাহিনিই বিধৃত আছে সুব্রত সেন মজুমদারের ‘ছাতিমতলার গান’ বইটিতে। অবক্ষয়ের বধ্যভূমিতে এ বই আমাদের আরও একবার দাঁড় করাবে আদর্শের মুখোমুখি।